একই পরিবারের ৫ জনের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

একই পরিবারের ৫ জনের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

একই পরিবারের ৫ জনের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ – ছবি : সংগৃহীত

ইসলাম শান্তির ধর্ম, আর এ ধর্মে রয়েছে মানুষের জন্য কল্যাণকর জীবনব্যবস্থা। এমন আত্ম-উপলব্ধি থেকে রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের একই পরিবারের ৫ জন হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গিয়ে এফিডেভিটের করে একই পরিবারের ৫ জন সনাতন ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। খবরটি জানাজানি হলে রামগঞ্জব্যাপী ব্যাপক সাড়া দেখা যায়। শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর তাদের জন্য বিভিন্ন মসজিদে দোয়া করা হয় ।

সুত্রে জানা যায়, উপজেলার ৪ নং ইছাপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর কুরি বাড়ির পলাশ কুরি (৩৫) ইসলাম ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে বৃহস্পতিবার স্বপরিবারে আদালতে গিয়ে নাম পরিবর্তনে করে আবদুর রহমান এবং স্ত্রী শিখা রানীর (২৫) স্থলে সুমাইয়া বেগম, বড় মেয়ে অন্বেষা রানী কুরির (১৩) স্থলে আয়েশা আক্তার, ছোট মেয়ে উর্সি রানী কুরির (১০) স্থলে খাদিজা আক্তার এবং পুত্র আবির চন্দ্র কুরির (৫) স্থলে মোঃ ইব্রাহিম নাম রেখে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

আবদুর রহমান ইসলাম ধর্ম গ্রহণ শেষে জানান, শৈশব থেকেই আমি ইসলাম ধর্মের প্রতি দুর্বল ছিলাম। বিয়ের পর সংসারী জীবনের একপর্যায়ে স্ত্রীর কাছে বিষয়টি প্রকাশ করলে সে আমাকে অনুপ্রাণিত করে। দীর্ঘ সময়ে মুসলমানদের রীতিনীতি পর্যালোচনা করে আল্লাহ এবং প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (স:) প্রতি বিশ্বাস রেখে স্বপরিবারে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করি। এরপর পদ্মা ইলিক্ট্রনিক্সের মালিক আনোয়ার নামে এক মুসলিম ভাই থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এবং রামগঞ্জ থানার এস আই জহির উদ্দিন শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় একটি রেষ্টুরেন্টে স্ব-পরিবারে খাবার খাইয়ে একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদ উল্যাহ জানান, আবদুর রহমান আমার ইউনিয়নের বাসিন্দা কয়েক দিন আগে তিনি আমাকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের বিষয়ে জানালে তাকে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। এখন তিনি আমার মুসলিম ভাই তাকে ও তার ছেলেমেয়ের লেখাপড়াসহ সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে বলেও তিনি জানান।

আরো পড়ুন :

কট্টর ইসলাম বিরোধী সেই ডাচ এমপির ইসলাম গ্রহণ
ডেইলি সাবাহ

ডাচ পার্লামেন্টের কট্টর ডানপন্থী ও ইসলামবিদ্বেষী সাবেক এমপি জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেছেন। গত সোমবার তিনি স্থানীয় গণমাধ্যমের কাছে বিষয়টি স্বীকার করেন।

সাত বছর ধরে জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন নেদারল্যান্ডসের ফ্রিডম পার্টির (পিভিভি) আইন প্রণেতার হিসাবে ইসলামের বিরুদ্ধে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে নিরবচ্ছিন্ন প্রচারণা চালিয়ে আসছিলেন। এসময় তিনি বোরকা ও মিনার নিষিদ্ধের পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়ে বলেছিলেন, ‘আমরা নেদারল্যান্ডে ইসলামের কোন ছিটা ফোটাও দেখতে চাইনা’।

কিন্তু ৪০ বছর বয়সী জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন বলেন, ‘ইসলামবিরোধী বই লেখার জন্য পড়াশোনা করতে গিয়ে ইসলাম সম্পর্কে তার ভুল ভাঙ্গে’।

জোরাম ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেন। এনআরসি সংবাদপত্রে তার একটি বইয়ের ইন্টারভিউয়ের কিছু অংশ প্রকাশ করা হয়েছে। বইটির নাম, “Apostate: From Christianity to Islam in the Time of Secular Terror.”

ভ্যান ক্লাভেরেনের ইসলাম গ্রহণ তার বন্ধু এবং শত্রুরা সবাই অবাক হয়েছেন।

ভ্যান ক্লাভেরেন দেশটির চরম ডানপন্থী ফ্রিডম পার্টির (পিভিভি) এমপি হিসেবে ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত পার্লামেন্টে দায়িত্ব পালন করেন। নিকট অতীতে বিভিন্ন সময়ে তিনি ইসলামবিদ্বেষী বক্তব্য দিয়ে আলোচিত হয়েছিলেন। দেশটির সংবাদপত্র এনআরসি জানাচ্ছে, জোরাম একবার বলেছিলেন, ‘ইসলাম মানেই হলো মিথ্যাচার’ এবং ‘কুরআন একটি বিষাক্ত গ্রন্থ।’

আগের এমন বক্তব্যের জন্য অনুশোচনা হচ্ছে কিনা সংবাদপত্রটির পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হলে, জোরাম বলেন, ‘ওই বক্তব্য খুবই ভুল ছিল। আমাদের দলের (পিভিভি) নীতিই ছিল যা কিছু মন্দ তার সাথে কোনো না কোনোভাবে ইসলামকে জড়িয়ে ফেলা।’

জোরাম তার রাজনৈতিক দলের আরেক সাবেক এমপি আর্নড ভ্যান ডোর্নের পদাঙ্ক অনুসরণ করেণ। কয়েক মাস আগে ডোর্নও ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেন।

জোরামের ইসলাম গ্রহণের পর ডোর্ন টুইট করে তাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘আমি কখনো ভাবতেও পারিনি পিভিভি ধর্মান্তরিতদের একটি সেন্টারে পরিণত হবে!’