চু.রির অ.বা.দে শিশুকে গাছে ঝু.লি.য়ে নি.র্যা,তন

চুরির অপবাদে শিশুকে গাছে ঝুলিয়ে নির্যা,তন

কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ায় মুঠোফোন চুরির অপবাদ দিয়ে দুই শিশুকে আমগাছের ডালে ঝুলিয়ে নির্যাতন করেছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে এই নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কুষ্টিয়াজুড়ে তোলপাড় চলছে। পুলিশ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও দুই শিশুর পরিবারসূত্র জানায়, ৪-৫দিন আগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়ার চরমণ্ডলপাড়া এলাকার রূপালী নামে এক নারীর মুঠোফোন চুরি হয়। ওই ঘটনায় তারা একই এলাকার ৭ বছরের এতিম শিশু জুয়েল ও আসিফকে সন্দেহ করে।

বুধবার বিকালে একই এলাকার প্রভাবশালী তানজিল ও মীর আক্কাস ওরফে মিরু তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে তানজিলের শ্বশুরবাড়ির সামনে আমগাছের ডালের সঙ্গে বেঁধে তাদের ঝুলিয়ে বেধরক পেটায়।

এসময় শিশু দু`টি মোবাইল চুরি করেনি বলে শত আকুতি করলেও নির্যাতন থেকে রেহাই পায়নি। পরে শিশু আসিফের পরিবারের কাছ থেকে দুই হাজার টাকা নিয়ে আসিফকে ছেড়ে দেয় নির্যাতনকারীরা। জুয়েল গুরুতর আহত হয়ে পড়লে রাতে স্থানীয়রা তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক হুসাইন মহম্মদ শিহাব জানান, শিশুর শরীরের কয়েকটি স্থানে জখমের চিহ্ন রয়েছে।

স্থানীয় যুবক আশরাফুল জানান, তিন বছর আগে জুয়েলের বাবা সিরাজুল মারা যায়। মা দেশের বাইরে থাকে। রাজমিস্ত্রি বড় ভাইয়ের কাছে থেকে সে লালনশাহ মাজারের সামনে একটি দোকানে কাজ করতো।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নুর মহম্মদ জানান, নির্যাতনের ভিডিওটি বুধবার রাতেই দেখেছি। এ ব্যাপারে নির্যাতিত ওই শিশুর পরিবারকে আইনের আশ্রয় নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

কুষ্টিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জুয়েল জানায়, গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে তাকে এক যুবক দোকান থেকে ধরে তানজিলের বাড়ির সামনে নিয়ে যান। তার দুই হাত দড়ি দিয়ে বেঁধে আমগাছের সঙ্গে টানানো হয়। মোবাইল ফোন সেট চুরির অভিযোগ তুলে তানজিল আমগাছের ডাল ভেঙে তাকে মারতে থাকেন।

জুয়েল জানায়, মারধরের সময় আশপাশের লোকজন দাঁড়িয়ে ছিল। কেউ কিছু বলেনি। মারধরে তানজিলের সঙ্গে মিরু ও এক নারী যোগ দেন।