জীবনে শেষবারের মতো স্বামীর সঙ্গে পদ্মা পার হচ্ছি, তবে প্রাণহীন নিথর দেহ নিয়ে

গত শনিবার রাত নয়টার দিকে জাজিরার সাত্তার মাদবর মঙ্গল মাঝির ঘাটে পৌঁছে স্ত্রী তাহমিনা আক্তারের মুঠোফোনে কল দেন খোকন সিকদার। কথা বলেন সন্তানদের সঙ্গেও। রাত দুইটার দিকে স্ত্রীকে ফোনে ফেরিতে ওঠার কথা জানান।

সকালেই তার বাসায় ফেরার কথা। কিন্তু স্বামীর মৃত্যুর খবরে সকালে ঘুম ভাঙে তাহমিনার। স্বামীর মৃত্যুর খবর পেয়ে দুই বছরের শিশুসন্তান কোলে নিয়ে সকালে শিমুলিয়া ঘাটে ছুটে আসেন তাহমিনা। আইনি প্রক্রিয়া শেষে দুপুরে স্বামীর নিথর দেহ নিয়ে ফেরিতে পদ্মা পার হন।

অথচ ২৬ জুন স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে চেয়েছিলেন খোকন। শনিবার রাত সাড়ে তিনটার দিকে শিমুলিয়া-সাত্তার মাদবর মঙ্গল মাঝির ঘাট নৌপথে চলন্ত দুই ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষে পিকআপ চালক খোকন নিহত হন।

তাহমিনা বলেন, ১৫ বছর ধরে ফেরিতে গাড়ি নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিয়েছেন তার স্বামী। বিভিন্ন সময়ে নানা ধরনের দুর্যোগে পড়েছেন, মোকাবিলা করে নিরাপদে পৌঁছেছেন। কখনো ভাবেননি, এভাবে তিনি মারা যেতে পারেন। ২৫ জুন পদ্মা সেতু চালু হবে। তার ইচ্ছা ছিল, ২৬ জুন চার সন্তান ও তাকে নিয়ে পদ্মা সেতু পার হবেন।

তাহমিনা বলেন, ‘আমার সব শেষ হয়ে গেল। জীবনে শেষবারের মতো স্বামীর সঙ্গে পদ্মা পার হচ্ছি, তবে প্রাণহীন নিথর দেহ নিয়ে। চার শিশুসন্তান নিয়ে এখন আমি কোথায় দাঁড়াব?’

দুর্ঘটনায় নিহত খোকনের মামা শাহজালাল সিকদার বলেন, খোকন ১৫ বছর ধরে গাড়ি চালান। কখনো ব্যক্তিগত গাড়ি, কখনো ট্রাক চালাতেন। দুই বছর ধরে মাছ পরিবহনের পিকআপটি চালাচ্ছিলেন খোকন। স্ত্রী ও চার শিশুসন্তান নিয়ে ঢাকার মধ্য বাড্ডায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। তার মা–বাবা ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার চিংড়াখালী গ্রামে থাকেন। আজ সন্ধ্যায় গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মাহিদুল ইসলাম বলেন, ফেরি দুর্ঘটনায় নিহত খোকনের লাশ স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি।