নেদারল্যান্ডসের পার্লামেন্টে প্রথম হিজাবধারী মুসলিম

নেদারল্যান্ডস পার্লামেন্টে প্রথমবারের মতো একজন হিজাবধারী মুসলিম সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

তার নাম কাউসার বৌচালিখট। তিন একজন জলবায়ু কর্মী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। রবিবার (২১ মার্চ) তাকে পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়। দ্য নিউ আরবে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এমনটা জানা গেছে।

পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর কাউসার এক টুইটে বলেন, ‘সব রকম বাধা পেরিয়ে আমরা বিজয়ী। সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ।’

২৭ বছর বয়সী কাউসার বৌচালিখট মরক্কান বংশোদ্ভূত। তিনি জলবায়ুবিষয়ক সচেতনতা ও কর্মতৎপরতার মাধ্যমে স্থানীয়দের আস্থা ও শ্রদ্ধা অর্জন করেন। নিজ দলের পরাজয়ের পরও তিনি নির্বাচনে জয় লাভ করেছেন। ফলে স্বাভাবিকতই তিনি অনেকের নজরে আসেন।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে জানা গেছে, তিনি নেদারল্যান্ডসের গ্রোয়িন লিংকস পার্টি থেকে তিনি পার্লামেন্টে প্রতিনিধিত্ব করবেন। নির্বাচনে ১৯ হাজারের বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

Related Posts
1 of 29

কাউসারের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে ডানপন্থী দলের সদস্যরা নানা ধরনের ঘৃণা ও বৈষম্যমূলক প্রচারণা চালিয়ে আসছে। আটরেচট ডাটা স্কুল এবং ডি গ্রোইন আমস্টারডামের ম্যাগাজিনের গবেষণামতে ৩০ ভাগের বেশি টুইট বার্তায় তার বিরুদ্ধে প্রচারণা চালানো হয়েছে। এছাড়াও ফিলিস্তিনের সমর্থনে সক্রিয়তার কারণে ডাচ্‌ সংবাদমাধ্যমে তাকে সেমিটিজমবিরোধী বলে অভিযুক্ত করা হয়।

গত ডিসেম্বরে এক খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করে যুক্তরাজ্যের শতাধিক রাজনীতিবিদ, সমাজকর্মী, শিক্ষাবিদসহ বিভিন্ন পেশার ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান কাউসারের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন এবং বর্ণবাদ ও ইসলামবিদ্বেষের বিরুদ্ধে নিন্দা জানান।

নেদারল্যান্ডসের অনেকে আমার ধর্মকে সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে নেতিবাচকভাবে সম্পৃক্ত করতে চান। তাছাড়া আমার মতো মুসলিমকে জলবায়ুবিষয়ক কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত দেখে বেশ অবাক হয়ে থাকেন।

আমি বিশ্বাস করি, মহান আল্লাহ আমাদের পৃথিবী দান করেছেন। পৃথিবীকে বসবাসযোগ্য রাখা আমাদের সবার কর্তব্য।
ডাচ সংবাদমাধ্যম গ্লামাউর-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কাউসার

নেদারল্যান্ডসে ইসলাম
২০১০-১১ সালে পরিচালিত এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, ইসলাম নেদারল্যান্ডসের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্ম। মোট জনসংখ্যার ৪ শতাংশ ইসলাম ধর্ম অনুসরণ করেন। দেশটির চারটি বড় শহর আমস্টারডাম, রটারড্যাম, দ্য হেগ ও উট্রেচট-এ বেশিরভাগ মুসলিম বসবাস করেন।

নেদারল্যান্ডসে ইসলামের আগমন ঘটে ১৬ শতাব্দীতে। তখন প্রাথমিকভাবে কিছু সংখ্যক ওসমানি (অটোম্যান) ব্যবসায়ী দেশটির বন্দর শহরগুলোতে বসতি স্থাপন শুরু করেছিলেন।

ফলে ইমস্টারডামে ১৭ শতাব্দীতে নেদারল্যান্ডের প্রথম মসজিদ নির্মাণ হয়। মসজিদটি তখন অসম্পূর্ণভাবে তৈরি করা হয়েছিল। বর্তমানে নেদারল্যান্ডসে প্রায় ৫০০টি মসজিদ রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More