নৌবাহিনীতে নিয়োগ: আপনি যেভাবে প্রতারিত হতে পারেন

সম্প্রতি বাংলাদেশ নৌবাহিনী একাধিক বিভাগে লোকবল নিয়োগ দিচ্ছে।

তবে এই নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে একাধিক প্রতারক চক্র মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে।

তারা মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রার্থীদের থেকে নানা উপয়ে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেওয়া চেষ্টা করছে। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নৌবাহিনী সম্প্রতি একটি সতর্কতামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তিটি হুবহু তুলে ধরা হলো…

আপনি যেভাবে প্রতারিত হতে পারেন

১। প্রতারক চক্র আপনার আশপাশে আপনাকে ফাঁদে ফেলার জন্য অপেক্ষা করছে।

২। অবসরপ্রাপ্ত নৌসদস্যরা আপনাকে চাকরি প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিতে পারে।

৩। বিভিন্নভাবে নৌসদস্যদের পরিচিতির মাধ্যমে চাকরি প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিতে পারে।

৪। সরকারি/বেসরকারি চাকরিরত যেকোনো ব্যক্তি অবৈধভাবে অর্থ লাভের আশায় আপনাকে চাকরির জন্য প্রলুব্ধ করতে পারে।

৫। দালাল/প্রতারকরা চাকরি না হলে টাকা ফেরতের প্রতিশ্রুতি দিতে পারে এবং ক্ষেত্র বিশেষে টাকা ফেরত দিয়ে অন্যান্যদের আস্থা অর্জন করতে পারে।

৬। দালাল/প্রতারকরা আপনার আস্থা অর্জনের জন্য শারীরিক পরীক্ষার নাম করে সামরিক হাসপাতালের ভুয়া মেডিকেল যোগ্যতা সনদপত্র প্রদান করতে পারে।

৭। দালাল/প্রতারকরা নিজেদেরকে সরকারি/রাজনীতিবিদ/নৌবাহিনীর কর্মকর্তাদের আত্মীয়/বিশেষ পরিচিত হিসেবে উপস্থাপন করতে পারে।

৮। দালাল/প্রতারকরা আপনাকে প্রভাবিত করতে নিজে পরীক্ষা কেন্দ্র পর্যন্ত যেতে পারে এবং বিভিন্ন মাধ্যমে আস্থা অর্জনের চেষ্টা করতে পারে।

৯। স্বাভাবিকভাবে চাকরি প্রাপ্তির পরও প্রতারক চক্র নানাভাবে তাদের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ করার চেষ্টা এবং অর্থ দাবী করতে পারে।

১০। স্বাভাবিকভাবে চাকরি প্রাপ্তির পরও প্রতারক চক্র ছলেবলে কৌশলে যোগদানপত্র হস্তগত করে অর্থ দাবি করতে পারে।

১১। প্রতারক চক্র অনলাইনে আবেদনের ব্যাপারে সবরকম সহযোগিতা করে থাকে এবং মোবাইলে এসএমএস পাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিতে পারে।

Related Posts
1 of 110

১২। প্রতারক চক্র আপনাকে ভুয়া যোগদানপত্র দিয়ে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে পাঠাতে পারে।

১৩। স্বাভাবিক চাকরি প্রাপ্তির পর প্রতারক চক্র আপনার নামে ভুয়া কেস দেখিয়ে অর্থ দাবী করতে পারে।

হুঁশিয়ারি

১। নৌবাহিনী কর্তৃক প্রচারপত্র ভালোভাবে পড়ুন এবং নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন।

২। আপনার এলাকায় পরিচিত/অপরিচিত লোকের চাকরির প্রলোভনের ব্যাপারে সজাগ থাকুন।

৩। সৎ পেশায় যোগদানের জন্য অনৈতিক আর্থিক লেনদেন পরিহার করুন।

৪। ঘুষ গ্রহণ ও প্রদানকারী সমান অপরাধে অপরাধী।

৫। কোন ব্যক্তি চাকরি দেওয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে আপনার নিকট টাকা দাবী করলে নিশ্চিত জেনে রাখুন আপনি প্রতারিত হচ্ছেন।

৬। যদি কোন ব্যক্তি সংবাদপত্রে প্রকাশিত তারিখ ও স্থান ব্যতীত অন্য কোন স্থান বা তারিখে নিয়োগ প্রদান করতে চায় তবে নিশ্চিতভাবে জেনে রাখুন আপনি প্রতারিত হচ্ছেন।

৭। প্রতারক সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রিক্রুটিং অফিসারকে অথবা নিকটস্থ নৌঘাঁটির নৌ-পুলিশকে অথবা টেলিফোন নম্বর ০২-৯৮৩৬১৪১-৯ বর্ধিত ২১৪৮ অথবা ০১৭১১-৮৯০০৫৪ এ অবহিত করুন।

জেনে রাখুন

১। নৌবাহিনীতে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে ভর্তি হওয়া দণ্ডনীয় অপরাধ।

২। আর্থিক লেনদেনে জড়িত থাকলে যোগ্যতার ভিত্তিতে নির্বাচিত প্রার্থীও যেকোন সময় বহিষ্কৃত হতে পারে।

৩। আর্থিক বা বৈবাহিক প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে প্রতারক চক্র চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিতে পারে ।

৪। প্রতারক চক্র সাধারণতঃ নৌবাহিনীর রিক্রুটিং টিমের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের অজান্তে তাদের নাম ভাঙিয়ে অর্থ/উৎ্কোচ গ্রহণ করে।
দালাল/প্রতারকদের সন্ধান দিয়ে যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনে সহায়তা করুন।

৫। নিজের যোগ্যতার উপর বিশ্বাস রাখুন ।

৬। নৌবাহিনীতে নাবিক ভর্তি কেবলমাত্র সংবাদপত্রে প্রকাশিত তারিখ ও স্থান অনুযায়ী নৌ রিক্রুটিং টিমের মাধ্যমেই হয়ে থাকে। বিচ্ছিন্ন কোন স্থান, সময় বা ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে নয়।

৭। প্রাথমিক নির্বাচন, প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা, লিখিত ও চূড়ান্ত নির্বাচন একই দিনে ভর্তির স্থানে সকলের সম্মুখেই অনুষ্ঠিত হয়। এ প্রক্রিয়ায় কোন প্রকার আর্থিক লেনদেনের সুযোগ নেই।

৮। নিজ জেলা ব্যতীত অন্য জেলায় ভুয়া কাগজপত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে ভর্তির প্রয়াস পরবর্তীতে প্রমাণিত হলে তাৎক্ষণিকভাবে চাকরি হতে বহিষ্কার করা হয় এবং প্রয়োজনে শাস্তি প্রদান করা হয়।

৯। যেকোনো প্রকার সুপারিশ অযোগ্য হিসেবে বিবেচিত হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More