পরীমনির মুক্তি চেয়ে আজ কেন স্ট্যাটাস দিলেন রোশান

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে করা মামলায় চিত্রনায়িকা পরীমনি আজ জামিন পেয়েছেন। জামিন পাওয়ার ঠিক কয়েক মিনিট আগেই চিত্রনায়ক রোশান পরীমনির মুক্তি চেয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন।

পরীমনি গ্রেপ্তারের পর অনেক অভিনয়শিল্পী ফেসবুকে তাঁর জন্য ন্যায়বিচার চেয়েছেন। কিন্তু ২৭ দিন পেরিয়ে গেলেও আজই প্রথম আপনি তার মুক্তি চেয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। আগে কেন মনে হয়নি সহকর্মীর ন্যায়বিচার চেয়ে কোনো স্ট্যাটাস দেওয়া উচিত।

Related Posts
1 of 4

রোশান বলেন, ‘সেই প্রেক্ষাপট নিয়ে কথা বলা হয়েছে। বিভিন্ন সময় কথা বলেছি। কিন্তু ফেসবুকে কী লিখব, কী লিখব না, এসব নিয়ে ভাবছিলাম। কারণ, একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস অনেক কিছু বহন করে। কে কীভাবে নেন, বলা যায় না। আর অনেকের মতো আমার সামর্থ্য ছিল না পরীমনিকে ছাড়িয়ে আনা। মন থেকে দোয়া করেছি। আজ মনে হলো তাকে জামিনের জন্য আদালতে তোলা হয়েছে। আজই তার জামিন পাওয়া উচিত। সে জন্য স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। সে মুক্তি পেয়েছে, সেটাই বড় কথা।’

পরীমনি এবং রোশান সর্বশেষ ‘মুখোশ’ সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন। সিনেমাটির সিংহভাগ শুটিং শেষ হলেও এখনো ডাবিং বাকি আছে। শিগগিরই তাঁরা ডাবিংয়ে অংশ নেবেন।

স্ট্যাটাসে রোশান লিখেছেন, ‘পরী অনেক ছোটবেলায় মা-বাবা হারিয়েছে। তাঁরা থাকলে হয়তো মেয়েটির জীবন অন্য রকম হতো, আজকের এই দিনগুলোর মতো হতো না। ছোটখাটো ভুলের বাইরেও তার অনেক ভালো গুণ রয়েছে। জনপ্রিয় নায়িকা হওয়া ছাড়াও বহু অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা গেছে বারবার। শাস্তি না দিয়ে সংশোধনের সুযোগ দিলে তার জীবনটা আরও সুন্দর হতে পারে। পরীর পারসোনাল লাইফ নিয়ে তেমন কিছু না জানলেও এটা জানি যে তার শত বছর বয়সী নানা তার জীবনে সব থেকে বড় আপনজন, যাঁকে সে তার বেঁচে থাকার বড় অবলম্বন মনে করে।’

রোশান আরও লিখেছেন, ‘সে ভার্টিগোতে আক্রান্ত। তার সঙ্গে আমার সর্বশেষ “মুখোশ” সিনেমায় কাজ হয়। কাজের সময় বারবার দেখেছি, তার সাডেনলি অসুস্থ হয়ে যাওয়া। যেটি আমাকে অনেক বেশি ব্যথিত করেছে। ২টি ছবিতে তাকে সহশিল্পী হিসেবে পেয়েছি। সেই সুবাদে যতটা দেখেছি পরী একজন মেধাবী অভিনেত্রী, মিশুক, পরোপকারী। চলচ্চিত্র অভিনেতা হিসেবে আমি তার মুক্তি চাই, সিনেমার স্বার্থে তাকে আমাদের আবারও প্রয়োজন। আমাদের অভিনেত্রী পরী আবারও আগের মতো কাজ করুক। যথেষ্ট হয়েছে আর কেউ তাকে নিয়ে বাজে কিছু বলবেন না। দিন শেষে এটাই সত্যি যে সে একজন মা ও বাবা–হারা এতিম মেয়ে। তাকে মুক্তি দেওয়া হোক।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More