রাঙ্গামাটিতে কলেজছাত্রীর ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু

রাঙ্গামাটিতে কলেজছাত্রীর ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু

ছবিতে পূর্ণিমা চাকমা

পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটিতে পূর্ণিমা চাকমা (১৯) নামে এক কলেজছাত্রীর ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু হয়েছে।

ওই কলেজছাত্রী জেলার জুরাছড়ি উপজেলার ৪ নম্বর দুমদুম্যা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বগাহালী এলাকার সাধন চাকমার মেয়ে বলে জানা গেছে। তিনি রাঙ্গামাটি সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, পূর্ণিমা চাকমা রাঙ্গামাটি শহরের রাজবাড়ী এলাকায় একটি বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকতেন। শুক্রবার বিকেলে প্রতিবেশীরা তাকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করে রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে মৃত ঘোষণার পর হাসপাতালে নিয়ে আসা ব্যক্তিরা উধাও হন।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. শওকত আকবর জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, কলেজছাত্রীর মরদেহ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। আগামীকাল (শনিবার) ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর হবে।

এ বিষয়ে কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কবির হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, কলেজছাত্রীর মৃত্যুর বিষয়ে এখনো বিস্তারিত কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা ধারণা করছি, ব্যক্তিগত ঝামেলার কারণে সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করতে পারে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ উদ্ঘাটন করা যাবে।

এদিকে, পূর্ণিমা চাকমার সহপাঠীরা জানিয়েছেন, জুরাছড়ির মেয়ে হলেও পড়াশোনার কারণে পূর্ণিমার জেলা শহরে থাকতেন। কিছুদিন ধরেই তিনি বাসা পরিবর্তনের কথা বলছিলেন। তবে ফাঁস নেওয়ার কারণ সম্পর্কে কেউ কিছু জানাতে পারেননি।

 

Related Posts
1 of 151

আরিয়ানের মামলার নতুন তদন্ত কর্মকর্তা কে এই সঞ্জয় সিংহ?

আরিয়ানের মামলার নতুন তদন্ত কর্মকর্তা কে এই সঞ্জয় সিংহ?

মাদক মামলায় গত ৩ অক্টোবর গ্রেফতার হয়েছিলেন বলিউডের বাদশাহ শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। সেই মামলার তদন্ত করছিলেন আলোচিত সমীর ওয়াংখেড়ে। এখন তার ওপর থেকে এ মামলার তদন্তের ভার সরিয়ে ভারতের মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা (এনসিবি) আইপিএস সঞ্জয়কুমার সিংহকে দায়িত্ব দিয়েছে।

অপরদিকে ওয়াংখেড়ের বিরুদ্ধে ঘুস নেওয়া এবং আরিয়ান মামলায় তদন্তের গাফিলতির অভিযোগ উঠার কারণে চলছে তদন্ত। ফলে এখন থেকে আরিয়ানের মামলার তদন্তে নেতৃত্ব দেবেন আইপিএস সঞ্জয়কুমার সিংহ।

কিন্তু আলোচিত এ মামলার তদন্তের দায়িত্ব পাওয়া কে এই আইপিএস সঞ্জয়কুমার সিংহ?

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠির বরাত দিয়ে এ পুলিশ কর্মকর্তা সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য তুলে ধরেছে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা।

১৯৯৬ ব্যাচের উড়িষ্যা ক্যাডারের আইপিএস সঞ্জয়। উড়িষ্যা পুলিশে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে সুনাম অর্জন করেছেন। তার পরিচিতি রয়েছে সৎ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে।
কাজ করেছেন উড়িষ্যা পুলিশের মাদক টাস্ক ফোর্সের (ডিটিএফ) অতিরিক্ত ডিজি হিসেবে।  এরপর ২০০৮ সাল থেকে ২০১৫ পর্যন্ত সিবিআইয়ের ডেপুটি ইনস্পেক্টর জেনারেল ছিলেন। এই সময়ে তিনি বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্ত করেছেন। এ ছাড়া তিনি উড়িষ্যা পুলিশের ইনস্পেক্টর জেনারেল (আইজিপি) এবং অ্যাডিশনাল কমিশনার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে আরও বলা হয়, চলতি বছরে মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থার (এনসিবি) ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল পদে যোগ দেন ক্লিন ইমেজের এ পুলিশ কর্মকর্তা।

সঞ্জয়ের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গ, ফৌজদারি মামলা বা দুর্নীতির কোনো অভিযোগ নেই।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More