ডাক্তার দেখাতে গিয়ে নিখোঁজ গৃহবধূ 

ডাক্তার দেখাতে গিয়ে নিখোঁজ গৃহবধূ

 

দেখানোর উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন মোসা. ফেরদৌসী (৩০) নামের এক গৃহবধূ ।

এ বিষয়ে বাউফল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার (২৯ অক্টোবর)  সকালে উপজেলার দাশপাড়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের

মৃধা বাড়ি (স্বামীর বাড়ি) থেকে ডাক্তার দেখানোর জন্য বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যেশ্যে রওনা দেন মোসা. ফেরদৌসী বেগম ।

এরপর থেকে তার কোন খোঁজ খবর পাওয়া যাচ্ছে না।

তার পরিবারের লোকজন নিকটতম আত্তীয় সহ আসেপাশের বিভিন্ন উপজেলায় খোঁজাখুজি করিয়াও কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। নিখোঁজ ফেরদৌসী’র চারটি ছোট সন্তান রয়েছে। এর ভিতরে একজন দুধের শিশু।

এ ঘটনায় বাউফল থানায় সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেছেন নিখোঁজ ফেরদৌসী’র স্বামী জাকির মৃধা (৩৭)।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, মোসা.ফেরদৌসীর বড় বোনের সামান্য মানসিক সমস্যা ছিলো। হতে পারে ফেরদৌসীর ও তেমন কোন সমস্যা দেখা দিয়েছে। এ কারণে হিতাহিতজ্ঞানশূন্য হয়ে তিনি হয়তো অন্যত্র কোথাও চলে গিয়েছে।

নিখোঁজ ফেরদৌসী’র স্বামী জাকির মৃধা বলেন, শুক্রবার আমার বৌ সামান্য অসুস্থ হয়ে পরেন। তাই ডাক্তার দেহানের লইজ্ঞা বাউফল হাসপাতালে যায়। কিন্তু হাসপাতাল দিয়া সে আর বাড়িতে ফেরে নাই। আমরা মেলা খোঁজাখুজি করছি পাই না।

কি জন্য এইরম হইলো বুঝতাছি না। আমার এউক্কা ছোট্ট দুধের বাচ্চা আছে। মা ছাড়া বাচ্চাটার মুখের দিকে চাইতে পারি। আমনেরা আমাগো একটু সহযোগিতা করেন। তাকে এঁকা কেন যেতে দিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সে এর আগেও একাধিকবার হাসপাতালে যাইয়া ডাক্তার দেহাইয়া আইছে কহনো সমেস্যা হয় নাই। তাই বুঝতে পারি নাই এমন ভাবে হারিয়ে যাবে।

এ বিষয়ে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) মোঃ আল মামুন বলেন,নিখোঁজ গৃহবধুর খোঁজ চলিতেছে।

 

Related Posts
1 of 151

পুলিশ সদস্যের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে ভাবীর অনশন!

 

IMG 20211106 090318 copy 800x500

ছবিঃ সংগ্রহীত

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে প্রেমিক

দেবরকে বিয়ের দাবিতে তার বাড়িতে অনশন করছেন সাবেক ভাবী।

এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য তৈরী হয়েছে।

দেবর আব্দুস সালাম একজন পুলিশ সদস্য বলে জানায় এলাকাবাসী।

স্থানীয়রা জানায়, আব্দুস সালামের চাচাতো ভাই শাহ আলমের সাবেক স্ত্রী নাসিমা আক্তার সালামকে

প্রেমিক দাবি করে তার বাড়িতে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে অনশনে বসেন।

নাসিমা আক্তারের দাবি বিয়ের পর থেকেই পুলিশ সদস্য দেবরের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। এবং বিয়ের আশ্বাস দিয়ে সালাম সাবেক স্বামীকে তালাকের পরামর্শ দেয়। সেই আশ্বাসে তিনি পূর্বের স্বামীকে ডিভোর্স দেন।

এরপর বিষয়টি জানাজানির পর স্থানীয়ভাবে নিষ্পত্তি হলেও সালাম ওই নারীকে বিয়ে করতে চাননি।

পরে ওই নারী বিষয়টি তার আগের কর্মস্থল হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ থানা-পুলিশকে অবগত করে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি তদন্তাধীন অবস্থায় রয়েছে।

এরমধ্যে বৃহস্পতিবার আব্দুস সালামের পরিবার গোপনে অন্যত্র তার বিয়ে ঠিক করেন। এ খবর পেয়ে বিয়ের দাবিতে অনশনে বসেন নাসিমা।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য তাজউদ্দিন জানান, বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে ইউনিয়ন পরিষদে সালিস বৈঠক হয়েছিলো।

কিন্তু সালাম বৈঠকের রায় মানেনি। বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে বলে জানান কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়ারদৌস হাসান।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More