জুমার নামাজের জায়গায় গোবর লেপে ধর্মীয় আচার পালন

জুমার নামাজের জায়গায় গোবর লেপে ধর্মীয় আচার পালন

জুমার নামাজের জায়গায় গোবর লেপে ধর্মীয় আচার পালন

নাজিম মোহাম্মদ প্রতি শুক্রবার নিজের দোকানের পাশে একটি খোলা জায়গায় জুমার নামাজ পড়তেন।

ভারতের গুরগাও বা গুরুগ্রামে একটি নাপিতের দোকান চালান তিনি।

কিন্তু এ শুক্রবার নামাজ পড়ার জায়গা নেই তার। নাজিম সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে বলেন, ‘আজ, আমি নিশ্চিত নই যে কোথাও নামাজ পড়তে পারব কিনা।’

কারণ, মসজিদের অভাবে যে খোলা স্থানে জামাত করে নামাজ পড়তেন স্থানীয় মুসলিমরা, সেই সেক্টর ১২/এ এলাকায় বড় বড় তাবু খাটিয়েছেন ডানপন্থী হিন্দুরা। সেখানে গোবর লেপে ধর্মীয় আচার পালন করছেন তারা।

সেই ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতা কপিল মিশরাসহ বেশ কয়েকজন রাজনীতিবিদ এবং হিন্দু পুরোহিত উপস্থিত ছিলেন।

অথচ ৪০ বছর বয়সী মিশরা নয়াদিল্লিতে ধর্মীয় সহিংসতা উস্কে দেয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত। ২০২০ সালের ওই সহিংসতায় ৫৩ জন নিহত হন, যাদের অধিকাংশই ছিলেন মুসলিম।

 

Related Posts
1 of 151

যুদ্ধ হলে ইসরাইলে দিনে ২,৫০০ ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানবে

IMG 07112021 225113 800 x 450 pixel

ইহুদিবাদী ইসরাইলি সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিভাগের কমান্ডার ইউরি গর্ডিন বলেছেন,

লেবাননের হিজবুল্লাহর সঙ্গে নতুন করে সংঘর্ষ শুরু হলে প্রতিদিন ইসরাইল অভিমুখে ২,৫০০ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হবে।

তিনি স্বীকার করেন, লেবাননের হিজবুল্লাহ ইসরাইলি সেনাবাহিনীর দুর্বল দিকগুলো সম্পর্কে ভালোভাবে অবহিত রয়েছে।

বার্তা সংস্থা রাই আল-ইয়াওম এই খবর জানিয়েছে। গর্ডিন আরো বলেন,

হিজবুল্লাহর সঙ্গে সংঘাত শুরু হলে ইসরাইলকে ক্ষেপণাস্ত্র বৃষ্টির মুখোমুখি হতে হবে এবং ইসরাইলের অধিবাসীদের সেরকম হামলা মোকাবিলা করার কোনো প্রস্তুতি নেই।

ইহুদিবাদী এই জেনারেল কয়েক সপ্তাহ আগে বলেছিলেন, গাজা উপত্যকার সঙ্গে সাম্প্রতিক যুদ্ধে তেল আবিব ও দক্ষিণাঞ্চলীয় অ্যাশদুদ শহরে সর্বোচ্চ সংখ্যক ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে।

ইসরাইল প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত এই দুই শহরে এত বেশি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানেনি।

হিজবুল্লাহর শক্তিমত্তার সামনে টিকতে না পেরে ইহুদিবাদী ইসরাইল ২০০০ সালে দক্ষিণ লেবানন থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়।

এরপর ২০০৬ সালে দীর্ঘ ৩৩ দিনব্যাপী যুদ্ধে আরেকবার হিজবুল্লাহর কাছে পরাজিত হয় তেল আবিব।

হিজবুল্লাহ এমন সময় এক মাসেরও বেশি সময় ধরে ইসরাইলকে ঠেকিয়ে রাখে যখন ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরাইল যুদ্ধে এক সপ্তাহেরও কম সময়ে সম্মিলিত আরব বাহিনী ইহুদিবাদীদের কাছে হেরে গিয়েছিল।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More