একই পুরুষের প্রেমে হাবুডুবু দু-দুজন তরুণী! জানেন কী করে ঠিক হল বিয়ের কনে

একই পুরুষের প্রেমে হাবুডুবু দু-দুজন তরুণী! জানেন কী করে ঠিক হল বিয়ের কনে?

Related Posts
1 of 151

একই সঙ্গে দুই তরুণীর সঙ্গে প্রেম করতেন এক যুবক (Viral News)। অবশ্য এক প্রেমিকা অন্যজনের কথা জানতেন না। কিন্তু ত্রিমুখী এই প্রেমের কথা জানাজানি হওয়ার পর দুই প্রেমিকার কেউই প্রেমিককে ছাড়তে রাজি হননি। শেষমেষ সবাই মিলে বের করলেন এক অভিনব পদ্ধতি। টস করে নির্ধারণ করা হল কনে কে।

n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS

কর্নাটকের (Karnataka) সকলেশপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৭ বছর বয়সী এক তরুণের সঙ্গে গত বছর পাশের গ্রামের এক তরুণীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু ছয় মাস আগে অন্য আরেক তরুণীর (Wedding News) প্রেমে পড়েন ওই তরুণ। এরপর লুকিয়ে দুজনের সঙ্গেই প্রেম চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

যদিও দুই তরফ এই ত্রিকোণ প্রেমে কোনও প্রেমিকাই টের পাননি তাঁদের প্রেমিকের কীর্তি। এরইমধ্যে সম্প্রতি ওই তরুণকে তার এক আত্মীয় এক প্রেমিকার সঙ্গে দেখে ফেলেন। তিনি তরুণের পরিবারে বিষয়টি জানালে তার পরিবারের সদস্যরা ওই সম্পর্ক মেনে নেয় না। পরিবারের লোকজন তাকে অন্য জায়গায় বিয়ে দিতে চান।

n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS

এ খবর পেয়ে দুই প্রেমিকার বাড়ির সদস্যরাই ওই তরুণের বাড়িতে আসে। তখনই বিষয়টি জানাজানি হয়। শেষপর্যন্ত বিষয়টি মীমাংসা করতে গ্রামের পঞ্চায়েতদের ডাকা হয়। তাঁদের কাছে দুই প্রেমিকাই ওই তরুণকে বিয়ে করতে নাছোড়বান্দা। এমন আজব দাবিতে ঘাবড়ে যান গ্রামবাসীরা। গ্রামের বয়স্করা অনেক বোঝানোর চেষ্টা করেন দুই তরুণীকে।

কিন্তু দুই তরুণীই বিয়ের দাবিতে অটল। পঞ্চায়েতের সদস্যরা ওই তরুণকে জিজ্ঞাসা করেন তিনি কাকে বিয়ে করতে চান। কিন্তু তিনি এ ব্যাপারে নিশ্চুপ থাকেন। এরই মধ্যে ওই তরুণের এক প্রেমিকা বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। অবশ্য প্রাণে বেঁচে যান তিনি। ওই তরুণী সুস্থ হওয়ার পর ফের গ্রামের পঞ্চায়েতের সদস্যরা বিষয়টি মীমাংসা করতে একত্রিত হন।

n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS

পঞ্চায়েতের সদস্যরা জানান, টসের মাধ্যমে (Wedding On Toss) ওই তরুণের কনে ঠিক করা হবে। তিন পরিবারই এ ব্যাপারে সম্মত হলে টস করেই ওই তরুণের কনে নির্ধারণ করা হয়। টস করে নির্ধারণ করা কনের সঙ্গেই ওই তরুণের বিয়ে হয়েছে বলে সামাজিক মাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

এরপর একটি বন্ড পেপারে সই করেন দুই তরুণী। এক গ্রামবাসী সাক্ষী হিসাবে সই করেন। এমন সময়ে হঠাত্ই গুণধর প্রেমিক নিজের ইচ্ছা প্রকাশ করেন। আত্মহত্যা করতে যাওয়া তরুণীকে তিনি জড়িয়ে ধরেন। সঙ্গে সঙ্গে অপর তরুণী ছুটে এসে তাঁকে চড় মারেন।

n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS
n5SoNWS

তবে এরপর আর বেশি কথা বাড়াননি ওই তরুণী। সেখান থেকে চলে যান তিনি। কথা বাড়ায়নি গ্রামবাসীরাও। শেষমেষ বিয়ে হয় ওই যুবতী ও যুবকের। শেষ পর্যন্ত অবশ্য টস ছাড়াই নির্ধারিত হন বিয়ের কনে।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More