‘মা’ ডাক শোনার জন্য আকুল, স্বামীর দ্বিতীয় বার বিয়ে দিলেন স্ত্রী

‘মা’ ডাক শোনার জন্য আকুল, স্বামীর দ্বিতীয় বার বিয়ে দিলেন স্ত্রী

দু’দশকের দাম্পত্য জীবনে সন্তান সুখ অধরাই থেকে গিয়েছে। নিজের উদ্যোগে শেষকিনা স্বামীর দ্বিতীয়বার বিয়ে দিলেন স্ত্রীই! ‘সতীন’কে সঙ্গে নিয়ে দিব্যি হাসিমুখে সংসার সামলাচ্ছেন ওই গৃহবধূ। শুনতে অবাক লাগলেও, এমনই ঘটনা ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে।

আরও পড়ুন: করোনা সতর্কতায় খোলা আকাশের নিচে রাত্রিবাস, সচেতনতার নজির পরিযায়ী শ্রমিকের

জামালপুরের শাহহোসেনপুর এলাকায় থাকেন আবু জাহির সাহানা। পেশায় তিনি রাজমিস্ত্রি। একুশ বছর আগে শাহিলা বেগম নামে এক মহিলার সঙ্গে বিয়ে হয় আবু-র। ওই দম্পতির কোনও সন্তান নেই। সেকারণে মানসিক কষ্টে ভুগছিলেন স্বামী-স্ত্রী দু’জনেই। কিন্তু সন্তানহীনতার কারণে সংসারে যে অশান্তি ছিল, তেমনটা কিন্তু নয়। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, অভাবকে সঙ্গী করে একে অপরকে নিয়ে সুখেই দিন কাটাচ্ছিলেন আবু ও শাহিলা। কিন্তু সন্তান ছাড়া কি দাম্পত্য পূর্ণতা পায়! শাহিলা সিদ্ধান্ত নেন, ফের স্বামীর বিয়ে দেবেন। আবুকে রাজিও করে ফেলেন তিনি।

আরও পড়ুন: লকডাউনে মদ্যপ অবস্থায় রেসিং করে গাড়ি উঠল বেহালার ফুটপাথে, ঘটনাস্থলেই জখম ৫

Related Posts
1 of 151

জানা গিয়েছে, ১১ মে ধর্মীয় রীতি মেনে বছর একুশের পারভিন খাতুনকে বিয়ে করেছেন আবু জাহির সাহানা। দুই স্ত্রীকে নিয়ে একই বাড়িতে রয়েছেন তিনি। শাহিলা বেগম জানিয়েছেন, শারীরিক সমস্যার কারণে সন্তান ধারণ করতে পারছিলেন না তিনি। পারভিনের গর্ভে যদি সন্তান আসে, তাহলে তাঁকে নিজের সন্তানের মতোই মানুষ করবেন তিনি। আর আবু জাহির সাহানার কথায়, তাঁর প্রথম স্ত্রীর এই স্বার্থত্যাগ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। শাহিলাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন গ্রামবাসীরাও।

 

জাতীয় সড়কে দেখা মিলল জখম নীলগাই-এর, শোরগোল বর্ধমানে

  • কোমর ও পা-এ গুরুতর আঘাত
  • জাতীয় সড়কে দেখা মিলল নীলগাই-এর
  • প্রাণীটিকে উদ্ধার করে বনদপ্তর
  • শোরগোল বর্ধমান শহরে
Nilgai rescued from National Highway at Burdwan BTG

পত্রলেখা বসু চন্দ্র, বর্ধমান: ভিনরাজ্য থেকে ট্রাকে চাপিয়ে কি বিরল প্রজাতির প্রাণীটিকে পাচার করা হচ্ছিল? মঙ্গলবার সাতসকালে নীলগাই-এর দেখা মিলল বর্ধমান শহরে। ঘটনাটি জানাজানি হতেই রীতিমতো হইচই পড়ে যায় এলাকায়। প্রাণীটিকে উদ্ধার করে অভয়ারণ্যে পাঠিয়েছে বনদপ্তর। নীলগাইটির পা ও কোমড়ে আঘাত রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

 

বর্ধমান শহরে উপকণ্ঠ ছুঁয়ে চলে গিয়েছে দুই নম্বর জাতীয় সড়ক। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় গোদায় এলাকায় জাতীয় সড়কের উপর একটি নীলগাইকে দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। তড়িঘড়ি খবর দেওয়া হয় পশুপ্রেমী সংগঠন ও বনদপ্তরে। অত্যন্ত তৎপরতায় সঙ্গে প্রাণীটিকে উদ্ধার করে বন দপ্তরের আধিকারিকরা। সেটিকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বর্ধমানেরই রমনাবাগান অভয়ারণ্যে। জানা গিয়েছে, নীলগাইটির পা ও কোমরের আঘাত গুরুতর। চিকিৎসা চলছে।

 

এ রাজ্যের কোথাও কিন্তু নীলগাই দেখতে পাওয়া যায় না। তাহলে বর্ধমানে কিভাবে এল প্রাণীটি? বন দপ্তর সূত্রে খবর, নীলগাই দেখতে পাওয়া যায় মূলত উত্তরপ্রদেশে। তবে সুন্দরবনে চাষের কাজে লাগানোর জন্য অনেক সময় প্রাণীগুলিকে ভিনরাজ্য থেকে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক অনুমান, চাষের কাজের জন্য কিংবা পাচার করার জন্য উত্তরপ্রদেশ থেকে ট্রাকে করে নীলগাই নিয়ে হচ্ছিল কলকাতায়। তখন হয়তো কোনওভাবে এটি গাড়ি থেকে পড়ে গিয়েছে বা ঝাঁপ দিয়েছে। সেকারণে চোটও লেগেছে কোমরে ও পায়ে। উল্লেখ্য, বছর চারেক আগে বর্ধমানেরই খণ্ডঘোষের একটি মাঠ থেকে নীলগাই উদ্ধার করা হয়েছিল। কিন্তু সেটিকে বাঁচানো যায়নি।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More