স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে বাসচাপায় স্কুলশিক্ষিকা নি,হত

স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে বাসচাপায় স্কুলশিক্ষিকা নিহত

বগুড়ায় স্কুল ছুটির পর স্বামীর মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিলেন শিক্ষিকা জাকিয়া সুলতানা (৪০)। এসময় মোটরসাইকেল থেকে সড়কে পড়ে গিয়ে বাসচাপায় নিহত হয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে বগুড়া-রংপুর মহাসড়কের ঠেঙ্গামারা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত জাকিয়া শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া তিনি শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর গ্রামের আচঁলাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিনের স্ত্রী। তিনি স্বামীর সঙ্গে বগুড়া সদরের উপশহর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় স্কুল ছুটির পর স্বামীর সঙ্গে মোটরসাইকেলযোগে কর্মস্থল থেকে বগুড়া শহরে বাসায় ফিরছিলেন জাকিয়া। পথিমধ্যে বগুড়া-রংপুর মহাসড়কে ঠেঙ্গামারা এলাকায় পৌঁছালে মোটরসাইকেলের পেছনে বসে থাকা জাকিয়া মহাসড়কে পড়ে যান। এসময় পেছন থেকে একটি অজ্ঞাত বাস তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা করার কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। নিহত জাকিয়া সুলতানার মরদেহ তার বাবার বাড়ি রায়নগর গ্রামে নেওয়া হয়েছে।

 

Related Posts
1 of 151

প্রতীক চশমা, প্রচারণা চালাচ্ছেন হাতির পিঠে

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন মজিদুল ইসলাম নামের এক প্রার্থী। তার প্রতীক চশমা। তবে প্রতীক চশমা হলেও হাতির পিঠে চড়ে প্রচারণায় নেমে আলোচনায় এসেছেন এই প্রার্থী।

রোববার (৭ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টায় উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের শালমারা থেকে কালীবাড়ি গ্রামে হাতির পিঠে চড়ে প্রচারণা চালান মজিদুল ইসলাম।

আদিতমারী উপজেলার আটটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যানসহ তিনটি পদে আগামী ১১ নভেম্বর ভোট হবে। সোমবার (৮ নভেম্বর) প্রচারণার শেষ দিন। শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে প্রচারণা। প্রার্থীরা বিভিন্নভাবে ভোটারদের মন জয়ের প্রাণান্তর চেষ্টা চালাচ্ছেন।

তবে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ভিন্ন কৌশল বেছে নিয়েছেন মজিদুল ইসলাম। বন্যপ্রাণী হাতি নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা করেছেন এই প্রার্থী। এ-সংক্রান্ত একটি ভিডিওতে দেখা যায়, জনগণ হেঁটে মিছিল করলেও প্রার্থী উঠেছেন হাতির পিঠে। তিনি হাতির পিঠ থেকে হাত নেড়ে ভোটারদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। হাতি দেখে গ্রামীণ শিশুরা আনন্দিত হলেও ভোটারদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। বন্যপ্রাণী দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা করাকে অমানবিক বলেছেন অনেক ভোটার। ভিন্ন কৌশলের এ প্রচারণার ভিডিও ফেসবুকে লাইভ করেছেন প্রার্থী মজিদুল ইসলাম।

সারপুকুর ইউনিয়নের ভোটার আনারুল হক বলেন, হাতির পিঠে উঠে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়া শুধু আচরণবিধি লঙ্ঘনই নয়, রীতিমতো অমানবিকও বটে। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের দেখা উচিত।

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিদুল ইসলামের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার সহকারী পরিচয় দিয়ে সাদেকুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি জাগো নিউজকে বলেন, ‘ভাই প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ত আছেন।’ পরে ফোন দিন বলে সংযোগ কেটে দেন।

সারপুকুর ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা রওশন মণ্ডল বলেন, হাতির পিঠে চড়ে প্রচারণায় অংশ নেওয়া আচরণবিধি লঙ্ঘনের শামিল। খোঁজ নিয়ে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আদিতমারী উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দিলশাদ জাহান বলেন, হাতির পিঠে চড়ে প্রতারণার বিষয়টি নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন হলে তার ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More