রূপপুর প্রকল্পে দুর্ঘটনায় রাশিয়ান প্রকৌশলীর মৃত্যু

রূপপুর প্রকল্পে দুর্ঘটনায় রাশিয়ান প্রকৌশলীর মৃত্যু

কোনিরবিভ বাউইরজান। ফাইল ছবি

পাবনার ঈশ্বরদীর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের
ভেতরে দুর্ঘটনায় এক রাশিয়ান প্রকৌশলীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রকল্পের ভেতরে একটি পেলোডার গাড়ি তাকে ধাক্কা দিলে গুরুতর আহত হন। তাকে দ্রুত ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত এই রাশিয়ান প্রকৌশলী ওই প্রকল্পে নিকিমথ কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন। তার নাম কোনিরবিভ বাউইরজান (৩৫)। ২০১৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর তিনি সাব-ঠিকাদারি এই কোম্পানিতে কাজের জন্য রাশিয়া থেকে বাংলাদেশে আসেন।

রূপপুর প্রকল্পের প্রশাসনিক কর্মকর্তা রুহুল কুদ্দুস বলেন, এটি একটি দুর্ঘটনা। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

ঈশ্বরদী থানার ওসি আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, শুক্রবার সকালে প্রকল্পের ভেতরে কাজ করার সময় একটি গাড়ি তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তার মরদেহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে।

আলালের ভিডিও ভাইরাল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থানায় অভিযোগ দায়ের

এবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বক্তব্যের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে এবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে আলালের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহসিন মোল্লা সদর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি বিএনপির একটি সভায় মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বক্তব্য দেন। সে বক্তব্য এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরছে। এতে প্রধানমন্ত্রীকে অপমান করা হয়। এই বক্তব্যে তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অপরাধ করেছেন।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম জানান, বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বিরুদ্ধে জেলা ছাত্রলীগের অভিযোগটি আমরা পেয়েছি। বিষয়টি আমরা যাচাই-বাছাই করছি। বিষয়টি পর্যালোচনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এর আগে একই ঘটনায় আলালের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শাহবাগ থানায় এই অভিযোগ দায়ের করেন ঢাবির পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগে শিক্ষার্থী নূরউদ্দীন আহমেদ। তিনি শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে থাকেন।

শাহবাগ থানার ওসি মওদুদ হাওলাদার বলেন, অভিযোগটি আমরা জিডি হিসেবে গ্রহণ করেছি। এখন সাইবার ক্রাইম ইউনিটে পাঠাব এটি পাঠানো হবে।